এইমাত্র পাওয়া

কলারোয়া দেয়াড়ার অচল স্ট্রিটলাইটগুলো দেখার কেউ নেই !

সরদার কালাম (কলারোয়া) সাতক্ষীরা : বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে পরিণত এবং আলোয় আলোকিত করতে সারাদেশ ব্যাপী নিরলস কাজ করেছে বর্তমান আ. লীগ সরকার।

এখনও অবধি করে যাচ্ছে।আগামীতেও করবে বলে দিড় প্রত্যয় রেখে এগিয়ে যাচ্ছে আ.লীগের সরকার।

এবং নানাবিধ উন্নয়ন মুলক কাজ বিগত কয়েক বছর ধরে করেছেন-বাংলাদেশ সরকারের প্রধান মন্ত্রী,বাংলাদেশ আ. লীগের সভাপতি,মাদার অফ হিউম্যানীটি খ্যাত,ডিজিটাল বাংলাদেশের রুপকার,জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা।

সারা দেশে নির্মিত হয়েছে ব্রিজ কালভট,রাস্তাঘাটসহ বিভিন্ন উন্নয়ন মুলক কাজ।

সেই সাথে দেশ আলোয় আলোকিত করতে স্ট্রিটলাইট স্থাপন/প্রদান করা হয় জেলা,উপজেলা পর্যায় থেকে ইউনিয়নে।

যার মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ সংযোজন শেখ হাসিনার উন্নয়ন।

সারাদেশে উন্নয়নের ধারাবাহিকতায়-সাতক্ষীরার কলারোয়া দেয়াড়ায় নির্মিত হয়েছে দৃশ্যমান কোটি টাকা ব্যয়ে খোরদো চাকলা বর্ডার গার্ড ব্রিজ,চলমান ইউনিয়ন পরিষদ ভবন নির্মাণের কাজ, রাস্তাঘাটসহ আলোকিত করার লক্ষ্যে বিভিন্ন যায়গায় স্ট্রিটলাইট স্থাপন।

আলোর সংযোজনের লক্ষ্যে উপজেলার দেয়াড়ায় গত কয়েক মাস আগে সোলার ল্যামস্টাম্প/স্ট্রিটলাইট প্রদান করা হয়েছিল।জ্বলছিল আলো।আলোয় আলোকিত এলাকা দেখে ভালই লাগছিল জনসাধারণের।

কিন্তূ,কিছু দিন যেতে না যেতেই অন্ধকারে লোকাতে থাকে ওই লাইটগুলো একেবারেই নষ্ট হয়ে।উপজেলার দেয়াড়ায় স্থাপিত ল্যামস্টাম্পের মধ্যে ৫-৭টি কোন রকম জ্বলছে,বাকিগুলো অচল হয়ে পড়েছে বলে জানান ইউনিয়নের প্রত্যক্ষদর্শীরা।ধোঁয়াসা স্থানীয় কতৃপক্ষ।কতৃপক্ষের নজরদারি না থাকায় পরিনত হয়েছে অন্ধকার ইউনিয়নে।

করছে জনসাধারণ অন্ধকারে বসবাস।নিঃস্ফল হয়ে দাঁড়িয়েছে সরকারের প্রদান করা স্ট্রিটলাইটগুলো ইউনিয়নের গুরুত্বপূর্ণ এলাকা-বাজার ও সড়কের পাশে।এলাকার জনসাধারণ ভোগ করছে চোর লোকানো অন্ধকারে।আলোকিত এলাকা দুরে থাক চোরকে চুরি করতে যেনো সহজতর হয়ে দাঁড়িয়েছে বর্তমানে।

কিছু স্ট্রিটলাইট মিটি মিটি আলোতে সতর্কতা সংকেত প্রদান করছিল মিউজিক লাইটের ন্যয় ভেলকিবাজীতে কিছুদিন।বর্তমান সেই মিউজিক লাইটের ন্যয় ভেলকিবাজী করা স্ট্রিটলাইটও সম্পুর্ন অচল হয়ে অন্ধকারে পরিনত হয়েছে স্থাপনা এলাকা।

সন্ধ্যা-রাত নেমে এলেই দেখা যায় তার বাস্তব অন্ধকারাচ্ছ এলাকার করুন দৃশ্য।কিছুই দেখা যায় না স্ট্রিটলাইটের আলোয় এলাকা।নষ্ট হয়ে গেছে স্ট্রিটলাইট স্থাপনাগুলো।সল্প সময়ের মধ্যে নষ্ট হওয়া স্ট্রিটলাইটের দৃশ্য দেখে হতবাক হচ্ছে উপজেলার দেয়াড়া ইউনিয়নের জনসাধারণ।অচল স্ট্রিটলাইট সংস্কারের জন্য দেখার যেন কেউ নেই।

সমস্যা সমাধান করার মত কতৃপক্ষ খুঁজে পাওয়াও মুশকিল।কে করবে ওই সমস্যা সমাধান?সেটাও বুঝে উঠা কষ্টকর।এমনটাই আক্ষেপ করেন ইউনিয়নের প্রত্যক্ষদর্শী জনসাধারণ ও সচেতন ব্যক্তিবর্গ।

বিষয়টি প্রত্যক্ষভাবে অনুধাবন করা উপজেলার দেয়াড়ার যুবলীগের সভাপতি আব্দুর রহমান মিঠু সাংবাদিকদের বলেন – ইউনিয়নের গুরুত্বপূর্ণ চলাচল সড়ক খোরদো বাজার ব্রিজ এলাকায় স্থাপিত স্ট্রিটলাইটসহ বিভিন্ন বাজারের মোড়ে মোড়ে আলোর সংযোজনের লক্ষ্যে সোলার স্ট্রিটলাইট বিতরণ করা হয় বিগত কয়েক মাস আগে।

কিন্তূ অচল হয়ে পড়েছে সল্প সময়ের মধ্যে ওই স্ট্রিটলাইট স্থাপনাগুলো।

ওই নষ্ট হওয়া স্ট্রিটলাইট সমাধানের জন্য-উর্দ্ধতন সংশ্লিষ্টদের সুদৃষ্টি কামনাও করেছেন তিনি এবং স্ট্রিটলাইট স্থাপন করা স্থানের নাম উল্লেখ করে তিনি বলেন,উপজেলার খোরদো বাজার ব্রিজের মুখ,খোরদো পুলিশ ক্যাম্প এলাকা,খোরদো বাজার সংলগ্ন একাধিক এলাকা,ছলিমপুর বাজার,ছলিমপুর কলেজ গেট,পাটুলিয়া বাজার,খোরদো স্লুইচ গেট,পাকুড়িয়া ফজলু সরদারের মোড়,দেয়াড়া নতুন বাজারসহ অন্যান্য এলাকা,কাশিয়াডাংগা বাজারসহ আরও নাম অজানা একাধিক যায়গায়।কিন্তূ ৫-৭টির মত কোন রকম জ্বলছে,বাকিগুলো অচল হয়ে পড়েছে বলেও জানান আব্দুর রহমান মিঠু। এলাকা আলোকিত করতে – অচল স্ট্রিটলাইটগুলো সংস্কারের জন্য দ্রুত উর্দ্ধতন সংশ্লিষ্ঠদের এগিয়ে আসা উচিত বলে মনে করছেন তিনি।

এছাড়াও-যেসমস্ত স্ট্রিটলাইট ইউনিয়নে প্রদান করা হয়েছে সেগুলোর ব্যাটারী বা সৌর শক্তি গ্রহণ করার ক্ষমতা অনেক দুর্বল বিধায় দ্রুত নষ্ট হয়ে পড়েছে বলে মন্তব্য করেন দেয়াড়ার বিভিন্ন শ্রেণি পেশার জনসাধারণ।

দ্রুত উর্দ্ধতন সংশ্লিষ্টদের নজরদারিতে এনে-সমস্যা সমাধানে সুদৃষ্টি কামনা করছেন দেয়াড়া ইউনিয়নের জনসাধারণ।

কলারোয়া (সাতক্ষিরা ) প্রতিনিধি,
দীর্ঘদিন থেকে সাংবাদিকতা পেশার সাথে জড়িয়ে আছেন। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশই তাঁর লক্ষ্য এবং এ বিষয়ে তিনি অনেক সচেতন।

সর্বশেষ তালাশ

অপরাধ জগত