এইমাত্র পাওয়া

সোনামসজিদ বন্দরে ৪দিনে আটকা পড়েছে পণ্যবাহী ৮শ’ ট্রাক

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি: চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনামসজিদ স্থলবন্দরের পানামা ইয়ার্ডের ভেতরে চারদিন ধরে প্রায় ৮শ’ পণ্যভর্তি ট্রাক আটকা পড়েছে। এতে চরম দূর্ভোগে পড়েছে পানামা কর্তৃপক্ষ,আমদানি-রপ্তানী কারক ও কাস্টমস কর্তৃপক্ষ।

জানাগেছে, সরকার বাজেট ঘোষণার পর আমদানিকৃত কোন কোন পণ্যের রাজস্ব বৃদ্ধি পাওয়ায় আমদানিকারকেরা ওইসব পণ্য ছাড় না করায় পানামা ইয়ার্ডের ভেতরে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। পানামা সোনামসজিদ পোর্ট লিংক লিমিটেডের এক কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, রাজস্ব বৃদ্ধি, ও আমদানিকারকদের উচ্চ আদালতে রিট করার কারনে পানামা ইয়ার্ডের ভেতরে ভারত থেকে আমদানিকৃত প্রায় ৮শ’ পণ্যভর্তি ট্রাক আটকা পড়েছে।এরমধ্যে রয়েছে- ১৩০টি চালভর্তি ট্রাকসহ ভূট্টা, ভূষি ও খৈলভর্তি ট্রাক। অন্যদিকে সোনামসজিদ স্থলবন্দরের সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক শফিউর রহমান টানু পানামার কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন-ইয়ার্ডের ভেতরের রাস্তা যানবাহন চলাচলের উপযোগি নয়। রশিদবিহীন টাকা আদায়। এছাড়া জনবল সংকট ও পানামা কর্তৃপক্ষের পণ্য ছাড়করণের ক্ষেত্রে অব্যবস্থাপনা।

এদিকে সোনামসজিদ স্থলবন্দরের কাস্টমস বিভাগের সহকারী কমিশনার সোলাইমান হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, পানামার অভ্যন্তরে ট্রাক যানজটের মূল কারণ পানামা প্রশাসনের অব্যবস্থাপনাকে দায়ী করেছেন তিনি। এছাড়া রয়েছে বাংলা গাড়ির সংকট ও রাজস্ব বৃদ্ধির কারণে আমদানিকৃত পণ্য ছাড়ে সিএন্ডএফ এজেন্টদের বিলম্ব। তাছাড়া পানামা ভেতরের ট্রাফিক ব্যবস্থা রয়েছে দুর্বল। এ বিষয়ে পানামা সোনামসজিদ পোর্ট লিংক লিমিটেডের জেনারেল ম্যানেজার বেলাল উদ্দিনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, পানামার অভ্যন্তরে জনবল ও ট্রাফিক ব্যবস্থার সংকট নাই।এছাড়া যোগাযোগ ব্যবস্থার ত্রুটি নেই।তিনি আরও জানান, পানামা ইয়ার্ডের ভেতরে যানজটের প্রধান কারণ সিএন্ডএফ এজেন্টরা যথাসময়ে পণ্য ছাড় না করা এবং কিছু কিছু আমদানিকৃত পণ্যের শুল্ক বৃদ্ধিও যানজটের অন্যতম কারণ।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি, দীর্ঘদিন থেকে সাংবাদিকতা পেশার সাথে জড়িয়ে আছেন। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশই তাঁর লক্ষ্য এবং এ বিষয়ে তিনি অনেক সচেতন।

সর্বশেষ তালাশ

অপরাধ জগত